কোরবানির ফজিলত

মাওলানা মুনীরুল ইসলাম: ইসলামে কোরবানি একটি গুরুত্বপূর্ণ ওয়াজিব ইবাদত। কেবল আল্লাহ তায়ালার সন্তুষ্টির জন্য কোরবানি পালনে অনেক ফজিলত রয়েছে। আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কোরানে কোরবানি প্রতিপালন করতে রাসুলুল্লাহ (সা.) এর প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন। হাদিস শরিফেও রাসুলুল্লাহ (সা.) কোরবানি পালনের অনেক ফজিলত বর্ণনা করেছেন। হজরত যায়েদ ইবনে আরকাম (রা.) থেকে বর্ণিত, ‘রাসুলুল্লাহ (সা.) এর সাহাবিরা তাঁকে জিজ্ঞেস করলেন, হে আল্লাহর রাসুল! এই কোরবানিটা কী? রাসুলুল্লাহ (সা.) জবাব দিলেন, এটা তোমাদের পিতা হজরত ইবরাহিম (আ.) এর সুন্নত বা আদর্শ। এরপর তারা জিজ্ঞেস করলেন, হে আল্লাহর রাসুল! এতে আমাদের জন্য কী উপকার বা সওয়াব রয়েছে? তিনি বললেন, কোরবানির পশুর প্রতিটি পশমের পরিবর্তে একটি করে নেকি রয়েছে। সাহাবায়ে কেরাম আবার জানতে চাইলেন, হে আল্লাহর রাসুল! ভেড়া, দুম্বার পশমের ব্যাপারে কী কথা? তিনি বললেন, এর প্রতিটি পশমের বিনিময়েও একটি করে নেকি পাওয়া যাবে’ (ইবনে মাজাহ, মিশকাত শরিফ)। হজরত আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘মানুষের আমলগুলো থেকে কোনো আমলই আল্লাহর কাছে কোরবানির দিন কোরবানি থেকে অধিক পছন্দনীয় নয়। অবশ্যই কিয়ামতের দিন কোরবানির প্রাণী শিং, লোম ও ক্ষুর নিয়ে আল্লাহর দরবারে উপস্থিত হবে। যে কোরবানি শুধু আল্লাহর জন্য করা হয়, নিশ্চয়ই সেই কোরবানির রক্ত জমিনে পড়ার আগেই আল্লাহর দরবারে তা কবুল হয়ে যায়। অতএব, তোমরা ভক্তি ও আন্তরিকতার সঙ্গে কোরবানি কর’ (তিরমিযি)। হজরত আবু সাঈদ খুদরি (রা.) থেকে বর্ণিত, ‘রাসুলুল্লাহ (সা.) হজরত ফাতেমা (রা.) কে বললেন, ফাতেমা! এসো তোমার কোরবানির পশুর কাছে দাঁড়িয়ে থাক। কারণ কোরবানির পশুর রক্তটা মাটিতে পড়বে, তার বিনিময়ে আল্লাহ তায়ালা তোমার পূর্বের গুনাহগুলো মাফ করে দেবেন। ফাতেমা (রা.) বলেন, এ সুসংবাদ কি আহলে বায়আতের (নবী পরিবারের) জন্য নির্দিষ্ট, না সকল উম্মতের জন্য? রাসুলুল্লাহ (সা.) বললেন, আমাদের আহলে বায়আতের জন্যও এবং সকল উম্মতের জন্যও’ (জামেউল ফাওয়ায়েদ)। হজরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা.) থেকে বর্ণিত, ‘রাসুলুল্লাহ (সা.) মদিনায় দশ বছর জীবনযাপন করেছেন, সেখানে প্রতি বছরই তিনি কোরবানি করেছেন’ (তিরমিযি)। অতএব, আসুন আমরা ইসলামের ওয়াজিব বিধান কোরবানি পালনের মাধ্যমে এর পরিপূর্ণ সওয়াব অর্জন করি। আল্লাহ রাব্বুল আলামিন আমাদের তাওফিক দান করুন।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Dhaka Division v Rangpur Division 49 *

Khulna Division 216/7 & 444/10 v Barisal Division 32 & 258/10 *

Dhaka Metropolis v Sylhet Division

Rajshahi Division 147/1 * v Chittagong Division 432/10

India A 320/10 v New Zealand A 147/10 & 64/2 *

Gauteng 110/8 v KwaZulu-Natal Inland 111/2 *

India 294/5 * v Australia 293/6

England 369/9 v West Indies 245/10 *

Namibia 165/3 v Free State 166 *

India Red v India Blue