গোদাগাড়ীর সাফিনা পার্ক সিলগালা

গোদাগাড়ী : দুই ভাইয়ের দ্বন্দ্বে বৃহস্পতিবার থেকে রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছিল রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার দিগ্রামে অবস্থিত সাফিনা পার্ক। ওই দিন বিকেল থেকে শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত কয়েকদফা সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটে পার্কে। শুক্রবার বিকেলে এক পক্ষের লোকজন পার্কের সামনে অবস্থান নিয়ে পার্ক দখলের চেষ্টা চালালে সেখানে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করে। কিন্তু তারপরেও পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) খালিদ হোসেন সেখান গিয়ে পার্কের এমডিসহ তিন জনকে আটক করেন। এ সময় সিলগালা করে দেয়া হয় পার্কের প্রধান ফটক।
স্থানীয় সূত্র গুলো জানিয়েছে, গোদাগাড়ী উপজেলার বালিয়াঘাট্টা এলাকার দুই ভাই ফজলুর রহমান ও সাইফুল ইসলাম ২০১২ সালে নিজেদের ৩০বিঘা জমিতে বাণিজ্যিকভাবে উপজেলার দিগ্রাম এলাকায় ‘সাফিনা পার্ক’ নামে এই পিকনিক স্পট গড়ে তোলেন। ওইসময় ফজলুর রহমান পার্কের চেয়্যারম্যান ও তার ছোটভাই সাইফুল ইসলাম পার্কের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের (এমডি) পদে আসীন হন। কিন্তু প্রতিষ্ঠার পর থেকেই এই দুই ভাইয়ের মধ্যে মালিকানা ও মুনাফা বণ্টন নিয়ে দ্বন্দ¦ বেঁধে যায়। এ নিয়ে বিষয়টি এর আগেও থানা পর্যন্ত গড়ায়। কিন্তু মিমাংসা না হওয়ায় পরিস্থিতি ধীরে ধীরে আরো জটিল হয়ে ওঠে। বর্তমানে পার্কের নিয়ন্ত্রণ আছে বড় ভাই ফজলুর রহমানের হাতে।
এ অবস্থায় বৃহস্পতিবার বিকেলে ছোট ভাই সাইফুল ইসলাম দেশীয় অস্ত্রসস্ত্রে সজ্জিত ৫০-৬০ জনের একটি দল নিয়ে পার্কে গিয়ে পার্ক দখলের চেষ্টা চালান। এ সময় তারা ফজলুর রহমানের অনুসারি পার্কের হিসাবরক্ষক বকুল হোসেনকে টেনে হেচড়ে মারপিট শুরু করেন। তাকে রক্ষা করতে গেলে পার্কের অপর এক কর্মচারিকেও মারধর করে আহত করা হয়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। ওই দিন তারা পার্ক দখলে ব্যর্থ হয়ে ফিরে যান।
পরে শুক্রবার বিকেল ৪ টার দিকে সাইফুল ইসলাম ফের দেশীয় অস্ত্রসস্ত্রে সজ্জিত ৫০-৬০ জনের একটি দল নিয়ে পার্কে প্রবেশের চেষ্টা করেন। তখন পার্কের কর্মকর্তা-কর্মচারিরা প্রধান ফটক বন্ধ করে দেন। এতে তারা পার্কে প্রবেশ করতে না পারলেও পার্কের সামনে অবস্থান নেন। ফলে পার্কের কর্মকর্তা-কর্মচারিরা পার্কের ভেতরে অবরুদ্ধ হয়ে পড়েন। এ অবস্থায় এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।
পরে খবর পেয়ে গোদাগাড়ী থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পার্কের এমডি সাইফুল ইসলামকে শান্ত করে বুঝিয়ে ঘটনাস্থল থেকে ফেরত পাঠানোর চেষ্টা করে। কিন্তু তারা পুলিশের কথায় কর্ণপাত না করায় ঘটনাস্থলে যান উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) খালিদ হোসেন।
এ সময় তিনি পার্কের এমডি সাইফুল ইসলামসহ আরো দুই কর্মচারিকে আটক করেন। আটক অন্য দুজন হলেন, পার্কের চেয়ারম্যান ফজলুর রহমানের অনুসারি পার্কের প্রশাসনিক কর্মকর্তা রাকিব হোসেন ও চেয়ারম্যানের গাড়ি চালক কাজল হোসেন। এ সময় ইউএনও পার্কের প্রধান ফটক সিলগালা করে দেন। দুই ভাইয়ের দ্বন্দ্ব না মেটানো পর্যন্ত পার্ক বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন তিনি।
এদিকে গোদাগাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম আবু ফরহাদ জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার বিকেলের ঘটনায় উভয়পক্ষই মারধর ও লুটপাটের অভিযোগ তুলে একে অপরের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ তাদের অভিযোগ খতিয়ে দেখছে।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Gazi Group Cricketers v Prime Bank Cricket Club 0/1 *

Prime Doleshwar Sporting Club 189/9 * v Abahani Limited

Sheikh Jamal Dhanmondi Club 197/10 * v Mohammedan Sporting Club

Central Development Region v Mid Western Development Region 123/10 *

Singapore v United States of America

Uganda v Malaysia

Canada 6 * v Oman

India v Bangladesh

New Zealand v Sri Lanka

North-West Warriors v Northern Knights

West Indies Cricket Board President's XI v Afghanistan