রাজশাহীতে দুর্ধর্ষ ছিনতাই চক্র

রাজশাহী:
রাজশাহী নগরীতে দুর্ধর্ষ ছিনতাইকারী চক্রের সন্ধান পেয়েছে পুলিশ। সম্প্রতি একটি খুনের তদন্তে নেমে ওই চক্রের সন্ধান পায় পুলিশ। সেই সূত্র অনুযায়ি ওই চক্রের সদস্যদের ধরতে পুলিশ মাঠে নামছে।
জানাগেছে, গত ১৯ ডিসেম্বর নগরীর শ্রীরামপুর এলাকার পদ্মার পাড় থেকে আব্দুর রশিদ নামের যুবকের ক্ষত-বিক্ষত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। তিনি জেলার বাগমারার দীপপুর গ্রামের গহের আলীর ছেলে। ওই দিন রাতেই তার বাবা বাদি হয়ে মামলা দায়ের করেন। ঘটনার দুই দিন আগে মামা আজাহার আলীর বাড়ি নগরীর কাজীহাটায় বেড়াতে এসেছিলেন তিনি। ওই দিন বাড়ি থেকে বেরিয়ে নিখোঁজ হন আব্দুর রশিদ। পুলিশ সূত্রে জানাগেছে, ১৭ জানুয়ারী সকাল ১০টার দিকে তারা শিমলা পার্ক থেকে প্রায় দেড় কিলোমিটার দূরে পদ্মার চরের কাশবনে ছিনতাইয়ের জন্য অপেক্ষা করছিলো নগরীর পাঠানপাড়ার সোহেল (২১), দর্গাপাড়ার মনিরুল (৩০), হোসনিগঞ্জ এলাকার নবেল (১৯) ও একই এলাকার জয়ন্ত (২২)। এরা সকলেই পেশাদার ছিনতাইকারী।
ওই সময় সেখানে গিয়ে হাজির যান আব্দুর রশিদ। অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে তার মোবাইল ছিনতাইয়ের চেষ্টা করে ছিনতাইকারীরা। এনিয়ে ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে আব্দুর রশিদের বুকে ছুরিকাঘাত করে মোবাইল নিয়ে পালিয়ে যায় ওই চার যুবক।
পরে পুলিশী অভিযানে এদের সহযোগী পবার ঝুজকাই এলাকার শহিদের (২৩) কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় ছিনতাইকৃত মোবাইলটি। তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে আটক হয় নগরীর হড়গ্রাম পূর্বপাড়া এলাকার মানুন (২৬) এবং হড়গ্রামের লিটন (৩২)। জয়ন্ত পলাতক থাকলেও একে একে আটক হয় হত্যাকাণ্ডে অংশ নেয়া বাকি তিনজনও। এদের মধ্যে সোহেলের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় হত্যাকণ্ডে ব্যবহৃত চাকু।
পুলিশ জানায়, জিজ্ঞাসাবাদে আসামীরা পুলিশকে চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছে। বেরিয়ে এসেছে নগরীর একটি বড় ধরণের ছিনতাইকারী চক্রের হাঁড়ির খবর। ওই চক্রের আস্তানা নগরীর পাঠানপাড়া-দর্গাপাড়া এলাকায়। সেখান থেকেই পুরো পদ্মাপাড় ও চরজুড়ে ছিনতাই চালিয়ে যাচ্ছে এ চক্রটি। ওই চক্রের সদস্য সংখ্যা ৩০ জনের বেশী। এরা ছোট ছোট দলে ভাগ হয়ে ছিনতাইয়ে অংশ নেয়। এসব চক্রের সদস্যরা বাধা পেলেই খুন করে শিকারকে।
আর নগরীর ছিনতাই চক্রের নিয়ন্ত্রন করে ১০জন শীর্ষ ছিনতাইকারী। ওই চক্রের একটি অংশ নগরজুড়েই ছিনতাইয়ে অংশ নেয়। এসব শীর্ষ ছিনাইকারীর নাম প্রকাশে রাজি হননি আনিসুর রহমান। তবে এদের অধিকাংশেরই সঙ্গে স্থানীয় প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতাদের সখ্যতাও রয়েছে বলে জানান। এছাড়া খুব শিগগিরই এদের বিরুদ্ধে তারা অভিযানে নামছেন বলেও জানান।
এর আগে একই এলাকা থেকে গত ১৮ অক্টোবর লিটন ইসলাম (৩৫) নামের এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত লিটন শ্বাশুড়ির চিকিৎসা করাতে ঝিনাইদহ থেকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এসেছিলেন। এছাড়া নগরজুড়েই প্রায় প্রতিদিনই ঘটছে চুরি-ছিনতাই। ছিনতাইকারীরা ছিনতাইয়ে ছুরি-চাকুর পাশাপাশি ব্যবহার করছে ক্ষুদ্র আগ্নেয়াস্ত্র। পুলিশের হাতে বেশ কয়েকজন পেশাদার ছিনতাইকারী গ্রেফতার হলেও ধরা-ছোঁয়ার বাইরে থেকে যাচ্ছে এসব চক্রের হোতারা। উদ্ধার হচ্ছেনা অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্রও।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, নগরীর বাসস্ট্যান্ড-রেলগেট-লক্ষ্মীপুর সড়ক, বন্ধগেট-ফায়ার সার্ভিস সড়ক, ভদ্রা দেবিশিংপাড়া, বন্ধগেট-সিটি বাইপাশ সড়ক, সাহেববাজার-কোর্ট সড়ক, রাজশাহী-নওগাঁ মহাসড়ক এবং রাজশাহী-ঢাকা মহাসড়কের কাপাশিয়া পর্যন্ত রাস্তায় এসব ছিনতাইয়ের ঘটনা বেশী ঘটছে। নগরীর আরো বেশ কয়েকটি পয়েন্টও ঘটছে এসব ঘটনা। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, থানায় অভিযোগ দিয়ে তারা সুফল পাচ্ছেন না।
সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানায়, রাতভর বাইরে থেকে আসা ব্যক্তিদের টার্গেট করেই একটি চক্র দীর্ঘদির ধরে ছিনতাই করে যাচ্ছে। আর কয়েকটি চক্র রয়েছে স্থানীয়। তারা নিজ এলাকায় পথচারীদের টার্গেট করে অস্ত্র ঠেকিয়ে সর্বস্ব্য লুটে নিচ্ছে। আরেকটি চক্র আছে, যারা মোটরসাইকেল নিয়ে বিভিন্ন রাস্তায় রিকশা বা হেঁটে যাওয়া পথচারীদের কাছ থেকে চলন্ত অবস্থায় গলার চেইন অথবা ভ্যানিটি ব্যাগ ছিনিয়ে নিচ্ছে।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Essex 206/10 v Nottinghamshire 380/10 & 35/1 *

Glamorgan 283/10 v Derbyshire 207/3 *

Kent 359/6 & 197/10 * v Warwickshire 125/10

Leicestershire 427/10 & /1 * v Middlesex 233/10

Surrey 459/10 v Somerset 18 & 180/10 *

Sussex 552/10 v Durham 202/4 *

Worcestershire 361/4 & 247/10 * v Lancashire 130/10

Northamptonshire 282/10 v Gloucestershire 174/8 & 62/10 *

Hampshire 153/3 * v Yorkshire 350/10

England 139 * v Australia 310/8