রাজশাহীর ১৪ পৌরসভায় মেয়র হতে চান যারা…

রাজশাহী: নির্বাচনী প্রচারণায় সরব হয়ে উঠেছে রাজশাহীর ১৪টি পৌরসভা। আওয়ামী লীগ-বিএনপিসহ বিভিন্ন দলের মেয়র ও কাউন্সিলর সম্ভাব্য প্রার্থী ইতোমধ্যেই নির্বাচনী মাঠে নেমে পড়েছেন। ঈদের আগে শুভেচ্ছা আর দোয়া কামনায় ওইসব সম্ভাব্য প্রার্থীদের রঙ্গিন পোস্টার, ব্যানার ও ফেস্টুনে ছেয়ে যায় পৌরসভার বিভিন্ন মোড় ও গুরুত্বপূর্ন স্থানগুলো। পৌরসভার হাট-বাজার ও বিভিন্ন এলাকার মোড়ে মোড়ে গিয়ে শুভেচ্ছা বিনিময় ছাড়াও মোটরসাইকেল শো-ডাউন ও ঈদ পূর্নমিলনী অনুষ্ঠান করেও অনেকে জানান দিচ্ছেন নিজের প্রার্থীতার বিষয়টি। চলছে দলীয় মনোনয়ন পেতে লবিং-গ্রুপিংও। বিশেষ করে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির স্থানীয় ও জেলাসহ কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে দেখা করে অনেকেই নিজের পক্ষে দলীয় মনোনয়ন পেতে তদবির চালাচ্ছেন। অনেকেই প্রচারণাও চালাচ্ছেন নেতাদের আর্শিবাদ পাওয়ার কথা বলেও। বেশিরভাগ পৌরসভাতেই বড় এই দুই দলেরই রয়েছে একাধিক প্রার্থী। শেষ পর্যন্ত দলীয় সমর্থন দিতে বেকায়দায় পড়তে পারে আওয়ামীলীগ ও বিএনপি। এনিয়ে দুই দলে নতুন করে বিভক্তি দেখা দিতে পারে বলেও মনে করছেন অনেকেই। তবে এবার প্রতিটি পৌরসভায় সম্ভাব্য প্রার্থীদের তালিকায় এগিয়ে রয়েছেন তরুণ মুখ। বিভিন্ন পৌরসভায় বিপুল সংখ্যক মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থী হতে ইতোমধ্যেই ব্যানার পোস্টার ও ফেস্টুন ঝুলিছেন তরুণরা। যাদের অধিকাংশের বয়স ৪০ বছরের নিচে। যাদের অধিকাংশই ছাত্রলীগ-ছাত্রদল বা যুবলীগ-যুবদলের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত।
রাজশাহী মহানগরীর উপকন্ঠে অবস্থিত নওহাটা পৌরসভায় এবার প্রার্থী হতে চান বর্তমান ভারপ্রাপ্ত মেয়র ও আওয়ামী লীগ নেতা শফিকুল ইসলাম, পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল বারী খান, প্রয়াত মেয়র আব্দুল গফুরের ছেলে ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের নেতা ফয়সাল কবীর রুনু, পৌরসভা যুবলীগের সভাপতি হাফিজুর রহমান, পৌরসভা বিএনপির একাংশের সভাপতি রফিকুল ইসরাম রফিক, সাধারণ সম্পাদক ওয়াদুদ হাসান পিন্টু, পৌরসভা বিএনপির অপরাংশের সভাপতি ও সাবেক মেয়র মোকবুল হোসেন আছেন সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকায়।
পবা উপজেলার কাটাখালি পৌরসভায় বরখাস্ত হওয়া মেয়র ও জামায়াত নেতা মাজেদুর রহমান এবারো নির্বাচনে প্রার্থী হতে চান। তবে বর্তমান ভারপ্রাপ্ত মেয়র মুক্তাদির রহমান, পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুর রউফ নান্নু, পৌরসভা বিএনপির সভাপতি অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম, আওয়ামী লীগ নেতা মুঞ্জুর রহমান, আব্বাস আলী, মতলেব মোল্লা ও মোতাহার হোসেন আছেন সম্ভাব্য তালিকায়।
বাগমারার উপজেলার তাহেরপুর পৌরসভায় বর্তমান মেয়র ও পৌরসভা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ ছাড়াও এবার মেয়র প্রার্থী হতে চান হাফ ডজন তরুণ মুখ। এদের মধ্যে রয়েছেন সাবেক মেয়র ও পৌরসভা বিএনপির সভাপতি আবু নাঈম সামশুর রহমান মিন্টু, পৌরসভা যুবদলের সভাপতি আব্দুল আলিম বাবু, পৌরসভা যুবলীগের সভাপতি মাসুদ রানা, পৌরসভা ছাত্রদলের সভাপতি এসএম আরিফ ও জামায়াত নেতা অধ্যাপক শহিদুজ্জামান মীর তপন।
বাগমারার ভবানীগঞ্জ পৌরসভায় মেয়র প্রার্থী হতে প্রচারণা চালাচ্ছেন বর্তমান মেয়র ও পৌরসভা বিএনপির সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক, পৌরসভা যুবদলের সভাপতি শাহীনুর ইসলাম, পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল মালেক, সাধারণ সম্পাদক মামুনুর রশিদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক আবু সাঈদ ও আওয়ামী লীগ নেতা গোলাম মোস্তফা।
মোহনপুর উপজেলার কেশরহাট পৌরসভায় এবারও মেয়র প্রার্থী হবেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক মেয়র শহিদুজ্জামান শহীদ এবং বর্তমান মেয়র ও পৌরসভা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দিন আলো। এছাড়াও পৌরসভা জামায়াতের সেক্রেটারি হাফিজুর রহমান মেয়র প্রার্থী হতে প্রচারণা চালাচ্ছেন।
দুর্গাপুর পৌরসভায় বর্তমান মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জাল হোসেন ছাড়াও এবার মেয়র প্রার্থী হতে প্রচারণায় নেমেছেন পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল মান্নান ফিরোজ, সাধারণ সম্পাদক আজাহার আলী, উপজেলা কৃষকলীগের আহবায়ক আব্দুর রাজ্জাক, উপজেলা বিএনপির সভাপতি আকবর হোসেন বাবলু, পৌরসভা বিএনপির সভাপতি আব্দুল আজিজ মন্ডল, সাবেক মেয়র ও বিএনপি নেতা সাইদুর রহমান মুন্টু, উপজেলার বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান ও পৌরসভা বিএনপির সহ-সভাপতি সৈয়দ জামাল উদ্দিন, উপজেলা ওয়ার্কার্স পার্টির আহবায়ক শামীম হোসেন, পৌরসভা জাতীয় পাটির সভাপতি আব্দুল মালেক।
চারঘাট পৌরসভার বর্তমান মেয়র ও আওয়ামী লীগের নেত্রী নার্গিস খাতুন ছাড়াও এবার মেয়র প্রার্থী হতে চান উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, সাবেক মেয়র ও পৌরসভা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন বিকুল, পৌরসভা বিএনপির সভাপতি কাউমুদ্দিন সরকার ও ছাত্রলীগ নেতা আনিসুর রহমান রাসেল।
পুঠিয়া পৌরসভায় মেয়র প্রার্থী হতে চান উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক, সাবেক সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম রবি, পৌরসভা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আল মামুন খান, সাংগঠনিক সম্পাদক বাবুল মিয়া, পৌরসভা বিএনপির সাবেক সভাপতি আলী হোসেন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদুল হক আসাদ, উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি এনামুল হক।
গোদাগাড়ী পৌরসভায় বর্তমান মেয়র ও পৌরসভা জামায়াতের সেক্রেটারি আমিনুল ইসলাম ছাড়াও পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি অয়েজ উদ্দিন বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক রবিউল আলম, পৌরসভা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাবেক মেয়র আনোয়ারুল ইসলাম, সহ-সভাপতি গোলাম কিবরিয়া রুলু, পৌরসভা যুবদলের সভাপতি মাহাবুবুর রহমান বিপ্লবের নাম শোনা যাচ্ছে সম্বাব্য মেয়র প্রার্থী হিসেবে।
গোদাগাড়ী উপজেলার কাঁকনহাট পৌরসভায় বর্তমান মেয়র ও পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল মজিদ এবারো প্রার্থী হচ্ছেন। সেই লক্ষ্যে তিনি প্রচারণাও চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি ছাড়াও মেয়র প্রার্থী হতে আগ্রহী পৌরসভা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক, পৌরসভা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল আলী খান, বিএনপি নেতা হাফিজুর রহমান হাফিজ।
তানোর পৌরসভায় বর্তমান মেয়র ও বিএনপি নেতা ফিরোজ সরকার, উপজেলা যুবদলের সভাপতি মিজানুর রহমান মিজান, পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইমরুল হক, সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ সরকার, পৌরসভা যুবলীগের সভাপতি ইকবাল হোসেন মোল্লা, আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল আহাদ মন্ডল ও ছাত্রলীগ নেতা আরিফুজ্জামান মোল্লা বাচ্চু মেয়র প্রার্থী হতে মাঠে আছেন।
তানোর উপজেলার মুন্ডুমালা পৌরসভায় বর্তমান মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম রাব্বানী ছাড়াও মেয়র প্রার্থী হতে প্রচারণায় আছেন পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম মোস্তফা, আওয়ামী লীগ নেতা আহসানুল হক স্বপন, অধ্যাপক লুৎফর রহমান, পৌরসভা বিএনপির সভাপতি মোজাম্মেল হক, সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান ও পৌরসভা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ কবীর।
বাঘা পৌরসভায় বর্তমান মেয়র ও আওয়ামী লীগ নেতা আক্কাস আলী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম বাবুল, পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস, পৌরসভা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মামুনুর রহমান মামুন, পৌরসভা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক তফিকুল ইসলাম তফি, উপজেলা বিএনপির সহসভাপতি ও সাবেক মেয়র আব্দুর রাজ্জাক সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকায় আছেন।
বাঘা উপজেলার আড়ানী পৌরসভায় বর্তমান মেয়র ও পৌরসভা বিএনপির আহবায়ক নজরুল ইসলাম, সাবেক সভাপতি তোজাম্মেল হক, পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহীদুজ্জামান শহিদ, সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মতি, সাংগঠনিক সম্পাদক ও বর্তমান প্যানেল মেয়র মুক্তার আলী, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক কামরুজ্জামান নিপন, পৌরসভা যুবলীগের সভাপতি কামরুল হাসান জুয়েল, পৌরসভা জামায়াতের সভাপতি মনিরুল আজম ও ওয়ার্কাস পার্টির নেতা ফরজ আলী আছেন নির্বাচনী মাঠে।
সবগুলো পৌরসভাতেই এখন নির্বাচনী আবহাওয়া বিরাজ করছে। সম্ভাব্য প্রার্থীরা সাধারণ ভোটার ও দলের কর্মীদের খুশি করতে সালাম আর শুভেচ্ছা বিনিময়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন। আবার দলের সমর্থন পেতে ধরনা দিচ্ছেন স্থানীয় প্রভাবশালী নেতাদের। এক্ষেত্রে স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতারা ছুটছেন স্থানীয় এমপিদের দ্বারে । #

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

England 514/8 v West Indies 76/4 & 168/10 *

Scotland Women 111/7 * v Netherlands Women 129/6

Boost Region 147/10 v Speen Ghar Region 150/5 *

South Africa A 258/5 * v India A

Netherlands Women 184/4 v United States of America Women 148/5 *

Guyana Amazon Warriors 130/5 v Trinbago Knight Riders 68/2 *

Singapore v Myanmar

St Kitts and Nevis Patriots v St Lucia Stars

Indonesia v Thailand